ভূয়া পরিচয়ে পাসপোর্ট করাতে এসে রোহিঙ্গা নারী ও গ্রাম পুলিশসহ ৬ জন আটক

বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলায় আত্মীয় পরিচয়ে রোহিঙ্গা নারীকে পাসপোর্ট করিয়ে দেবার সময় গ্রামপুলিশ ও রোহিঙ্গা নারীসহ ৬ জন আটক হয়েছেন। আটক ব্যক্তিরা হলেন রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বসবাসকারী ছৈয়দ হোসেনের মেয়ে রেজিয়া বেগম (২০), নাইক্ষ্যংছড়ি সদর ইউনিয়নের গ্রাম পুলিশ (চৌকিদার) আবদুল মালেক (৩৮), রোহিঙ্গা নারীর পিতা পরিচয়দানকারী মোঃ জাকারিয়া (৪৮) ও তাদের আত্মীয় পরিচয়দানকারী ছৈয়দ হোসেন (৪২), এলম খাতুন (৩৩) ও রাজিয়া বেগম (৪০)।

তাদের বিরুদ্ধে ওই রোহিঙ্গা নারী রেজিয়া বেগমকে পাসপোর্ট করিয়ে দেবার বিনিময়ে দুই লাখ টাকা নেবারও অভিযোগ পাওয়া গেছে।

স্থানীয়রা জানান, নাইক্ষ্যংছড়ির কিছু জনপ্রতিনিধি ও নেতৃস্থানীয় লোক দীর্ঘদিন ধরে রোহিঙ্গাদের পাসপোর্ট পাবার ক্ষেত্রে সহায়তা করে আসছেন। মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে জন্মনিবন্ধন, ভূয়া জাতীয় পরিচয়পত্রসহ বিভিন্ন কাগজপত্রও তৈরি করে দিচ্ছে তারা।

এর মধ্যে পুলিশ ভেরিফিকেশনের সময় দেশীয় নাগরিকদেরকে পিতা, মাতা, ভাই, বোন সাজিয়ে প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিচ্ছে তারা। এরকমই একটা ঘটনায় চৌকিদার আবদুল মালেক দুই লাখ টাকার বিনিময়ে রোহিঙ্গা নারী রেজিয়া বেগমকে পাসপোর্ট করিয়ে দেবার কাজ নেন। চুক্তি অনুযায়ী নাইক্ষ্যংছড়ি সদর ইউনিয়ন পরিষদ থেকে জন্মনিবন্ধন সনদ, জাতীয়তা সনদ, হেডম্যান রিপোর্টসহ ফরম সত্যায়ন করিয়ে নেন চৌকিদার আবদুল মালেক।

নাইক্ষ্যংছড়ি সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান তসলিম ইকবাল চৌধুরী বলেন, ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা ছৈয়দ হোসেনের মেয়ে রেজিয়ার একটি পাসপোর্ট ফরম সত্যায়িত করেছি। কিন্তু আটক হওয়া রেজিয়াকে আমি চিনি না। আটক ছৈয়দ হোসেন তার মেয়ে অসুস্থ বলে আমার কাছ থেকে সত্যায়িত করে নিয়ে গেছে। তাদের কোন আর্থিক লেনদেনের ব্যাপার আমার জানা নেই।

আটক হওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে মোঃ জাকারিয়া বলেন, চৌকিদার মালেক সব কাগজপত্র তৈরি করে দেবার জন্য টাকা নিয়েছে। কিন্তু প্রশাসনের অভিযানে আমরা ধরা পড়েছি।

এ বিষয়ে পুলিশ সুপার জাকির হোসেন মজুমদার বলেন, দালাল ও চৌকিদারের সহযোগিতায় এক রোহিঙ্গা নারী মালয়েশিয়া যাওয়ার জন্য বান্দরবান সদরের আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে এসেছিল। গোপন সূত্রে খবর পেয়ে দালাল, চৌকিদারসহ ৬ জনকে আটক করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে সদর থানায় মামলা হয়েছে।

এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক মো. দাউদুল ইসলাম বলেন, রোহিঙ্গাদের পাসপোর্ট করার পেছনে কারা জড়িত খতিয়ে দেখা হচ্ছে। জড়িতদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

উত্তর দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here